Mamunur Rashid Chowdhury (1944 – 2013)

Mr. Mamunur Rashid Chowdhury, former Secretary General of Bangladesh Free Trade Union Congress (BFTUC) breathed his last at National Institute of Diseases of the Chest and Hospital, Bangladesh, on 8 February 2013 (around 11:58 am Bangladesh Time).

He was 68 years old at the time of his departure (from 1944 to 2013). Mamunur Rashid Chowdhury was born in 31 December 1944, the time when Second World War just ended.

His arrival in this earth took place inside a sophisticated muslim family at Basulla village of Chunarughat Upazila in Habiganj district (the then Sylhet district).

His father’s name is Moulvi Abul Hashem Chowdhury, mother’s name Zinnatunnesa. His grandfather is Abdul Aziz Master.

Mamunur Rashid Chowdhury was an inspiring personality who will always be remembered for his dedicated and path-breaking contribution in trade union movement and rights activism.

Childhood and education: Mamunur Rashid Chowdhury passed his childhood witnessing an environment full of natural beauty of tea gardens. He is the third of his five sibling brothers. He lost his mother in his early childhood when he is at 6 years old. He took his elementary education at a local primary school named Ekdala Primary School and continued his study to 5 standard.

He passed matriculation from Razar Bazar High School successfully. He obtained intermediate degree from Chunarughat College and then enrolled himself at Sylhet M C College, a renowned educational echelon of Sylhet. He got honors degree from there.

Professional Career: Mamunur Rashid Chowdhury started his profession on 1968 being appointed at Bangladesh Forest Industries Development Corporation (BFIDC). As an employee of BFIDC, he had the opportunity to interact with workers and took a close look at the workers’ daily life. He sincerely discharged his responsibility entrusted on him throughout the professional life.

He had a noteworthy contribution in upholding workers’ rights. He devoted his life for the betterment of workers and employees as a CBA leader at BFIDC. As a result, he was unlawfully sacked from his office for more than 15 times. In the year of 1988, he was unlawfully sacked for the last time for participating regional conference of ICFTU. After that, he has never re-appointed in his office. Even he was deprived of his due provident fund including gratuity. BFIDC authority did not reimburse the due amount of money to him.

Mamunur Rashid Chowdhury as Freedom Fighter of Liberation War: Being an employee of BFIDC, he had to stay at Kaptai in Rangamati district, the hill tract of Bangladesh. It was the time when Bangabandhu (Father of the Nation) Sheikh Mujibur Rahman proclaimed: “Our struggle is for our freedom. Our struggle is for our independence.” Brother Mamun was working for organizing workers to prepare for fight against Pakistani Junta as Bangabandhu announced a civil disobedience movement in the province, calling for “every house to turn into a fortress”.

The Pak military circulated his photos in that area to grab him so that he shifted to Habiganj area under Sector No. 3 from Kaptai to prepare for liberation war.

Mamunur Rashid Chowdhury as Journalist: Brother Mamun has a great contribution in the country’s journalistic arena as he came up with the guts of publishing newspaper at the time when the initiative is believed to be a day-dream. But his enthusiasm has never died. His leadership has pushed forward the frontiers of journalism by launching a national newspaper `Weekly Nayabarta’. The weekly successfully managed an eye-catching response from general audiences. The weekly had a full bunch of renowned journalists and publishers. Bangabandhu Sheikh Mujibur Rahman’s nephew Sheikh Shahidul Islam was the head of editorial board. Renowned journalists Nazim Uddin Manik, Wahidur Rashid Murad and Shafiqul Alam Kajal joined the team as journalist.

Brother Mamun was also very active in development activities of National Press Club. Moreover, he also worked for journalist’s betterment through his active contribution.

Mamunur Rashid Chowdhury as Trade Unionist: Mr Mamunur Rashid Chowdhury was much familiar as `Mamun Bhai’ (Brother Mamun) because he was very close to his fellows. He had intimate relations with them. Brother Mamun was not only a name of pro-worker activist but also a symbol of reliance in resolving any trouble they faced.  He continued trade union movement as a dynamic leader in the field of workers’ rights to his last breath.

Brother Mamun’s leadership in national and International arena: In 1972, he started to perform as education secretary of Jatiya Shramik League being inspired by Sheikh Fazlul Haque Moni. He landed his first footstep in national movement as a Shramik League leader. Later in the year of 1988, he joined BFTUC because he wanted to contribute in non-partisan labour movement and served the organization being secretary general. Through BFTUC, he worked for implementing various activities of ICFTU, the largest international trade union of the world (Now ITUC).

In 1981, Brother Mamun established Bangladesh Building and Wood Workers Federation (BBWWF) by uniting country’s construction and wood industry workers. He worked here as general secretary.

In 1985, he established Federation of Garments Workers (FGW) by uniting workers worked in garments industry. Being president of the organization, he advanced its activities in broader extent through his dynamic leadership.

Considering worker’s broader interest, he played lead role in formation, activity and movement of SKOP, a united platform of national trade unions, to make a thriving and forceful trade union movement.

In 1995, he was an honorable member of advisory council of Bangladesh Institute of Labour Studies (BILS), a labour-support NGO of Bangladesh which was established in a bid to boost skills of 13 national level trade unions.

In the year of 2003, specialized labour institution Bangladesh Occupational Safety, Health and Environment Foundation (OSHE) has been established with the aim of bringing rights of occupational health and safety at workplace. Brother Mamun was one of the advisory board members of OSHE from its inception.

Brother Mamun also played important role in formation of Bangladesh Confederation of Trade Unions (BCTU) by uniting 5 different national trade union organizations affiliated with ITUC. He was the first elected secretary general of BCTU.

Besides these roles, he played important role in many national and international bodies. Some noteworthy organizations are-

  1. Shramik Karmachari Oikya Parishad (SKOP)
  2. TCC
  3. Bangladesh Shramik Kallyan Foundation
  4. National Industrial Health Safety Council
  5. 3rd Labour Court (1995-2009)
  6. ITUC executive council
  7. BWI executive council

Brother Mamun visited many places abroad being invited by different organizations. He explored India, Pakistan, Sri Lanka, Nepal, Japan, Singapore, Thailand, Malaysia, New Zeeland, Australia, Philippines, Italy, England, Turkey, Belgium, France, South Africa, Canada and America and many more countries to share the status of labour in Bangladesh with suggestions to improve the situations as well.

He was survived by his wife and a son and three daughters, relatives and a host of well-wishers to mourn his death.

We pray for eternal peace of the departed soul. Inna Lillahi Waa Inna Ilaihi Raaziun. Rest in peace! Brother.


জনাব মামুনুর রশিদ চৌধুরী

(১৯৪৪-২০১৩)

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষের দিকে জনাব মামুনুর রশিদ চৌধুরী ১৯৪৪ সালের ৩১ ডিসেম্বর হবিগঞ্জ জেলার (সাবেক সিলেট জেলা) চুনারুঘাট উপজেলার বাসুল্লা গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম মৌলভি আবুল হাশেম চৌধুরী,মাতার নাম জিন্নাতুন্নেছা ও দাদার নাম আবুল আজিজ মাস্টার।
শৈশব ও শিক্ষাজীবন: মামুনুর রশিদ চৌধুরী গ্রামের বাড়িতে বেড়ে উঠেন। তিনি ছিলেন পাঁচ ভাই এর মধ্যে তৃতীয়। শৈশবে মাতৃহারা মামুনুর রশিদ চৌধুরী ৬ বছর বয়সে চা-বাগান বেষ্টিত এলাকায় বেড়ে ওঠেন। একডালা প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রথম শ্রেণিতে ভর্তি হন এবং ৫ম শ্রেণি পর্যন্ত সেখানে লেখাপড়া করেন।
রাজার বাজার উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ম্যাট্রিকুলেশন এবং চুনারুঘাট কলেজ থেকে আইএ পরীক্ষায় কৃতিত্বের সাথে উত্তীর্ণ হন। এরপর সিলেটের সরকারী এম সি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন।
কর্মজীবন : বর্ণাঢ্য কর্মজীবনের শুরুতেই তিনি ১৯৬৮ সালে বাংলাদেশ বনশিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশন (BFIDC) এ চাকরিতে যোগদান করেন। চাকরির সুবাধে বাংলাদেশর বিভিন্ন অঞ্চলে বিভিন্ন পেশায় কর্মরত শ্রমিকদের জীবনযাপনের ধরন খুব কাছ থেকে দেখার সুযোগ পান। চাকরিজীবনে সুনামের সাথে দায়িত্ব পালন করেন এবং একজন সুযোগ্য সিবিএ নেতা হিসেবে বনশিল্প উন্নয়ন কর্পোরেশনের শ্রমিক কর্মচারীদের স্বার্থ সংরক্ষণে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন। উল্লেখ্য, শ্রমিকদের অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে নেতৃত্ব প্রদানের কারণে তিনি তার কর্মজীবনে ১৫ বারেরও বেশি অন্যায়ভাবে চাকরিচ্যুত হন। ১৯৮৮ সালে ICFTUএর আঞ্চালিক সম্মেলনে যোগদানের কারণে BFIDC কর্তৃপক্ষ তাকে শেষবারের মত চাকরি থেকে বরখাস্ত করে। জীবদ্দশায় তিনি তার হারানো চাকরি ফিরে পাননি। এমনকি চাকরিসূত্রে প্রাপ্য তার ন্যায্য অধিকার প্রভিডেন্ট ফান্ড এবং গ্রাচুইটিসহ সমুদয় অর্থ BFIDC কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে বুঝে পাননি।
মুক্তিযোদ্ধা মামুনুর রশিদ চৌধুরী: চাকরিসূত্রে রাঙ্গামাটির কাপ্তাইয়ে অবস্থানকালে ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহ্বানে সাড়া দিয়ে কাপ্তাই অঞ্চলের শ্রমিকদের মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের উদ্দেশ্যে সংগঠিত করার কাজে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন। সেই সময় হানাদার পাকবাহিনী তাকে ধরিয়ে দিতে তার ছবি এলাকায় প্রচার করে।তাই কৌশলগত কারণে আত্মগোপনে থেকে ৩নং সেক্টরের আওতায় হবিগঞ্জ অঞ্চলে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন ।
সাংবাদিকতা জগতে মামুনুর রশিদ চৌধুরী: চাকরির পাশাপাশি সাংবাদিকতা জগতেও মামুনুর রশিদ চৌধুরীর অবাধ পদচারণা ছিল। আশির দশকে যখন হাতে গোনা কয়েকটি দৈনিক ও সাপ্তাহিক ছিল পাঠকদের ভরসা, পত্রিকা প্রকাশ করা ছিল আকাশকুসুম কল্পনা,তখন তিনি পত্রিকা প্রকাশের সাহসী উদ্যোগ নেন। তার সম্পাদনা ও প্রকাশনায় বাজারে আসে জাতীয় সংবাদপত্র ‘সাপ্তাহিক নয়াবার্তা’। পাঠকমহলে ব্যাপক সাড়া জাগায় সাপ্তাহিক নয়াবার্তা।পত্রিকাটির সম্পাদকমন্ডলীর সভাপতির দায়িত্বে ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাগ্নে শেখ শহীদুল ইসলাম। ওই পত্রিকায় সাংবাদিক হিসাবে যোগ দেন নাজিম উদ্দিন মানিক, ওয়াহিদুর রশীদ মুরাদ ও শফিকুল আলম কাজলের মতো খ্যাতিমান সব সাংবাদিক।একজন যোগ্য ও নির্ভীক সংবাদকর্মী হিসাবে সাংবাদিকতা জগতে মামুনুর রশিদ চৌধুরী রাখেন সাহসী ভূমিকা। এছাড়া সাংবাদিকদের স্বার্থ সংরক্ষণে জাতীয় প্রেসক্লাবের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কর্মকান্ডে সক্রিয় অবদান রাখেন।
ট্রেড ইউনিয়নে সম্পৃক্ততা: নিরলস পরিশ্রম ও অত্যন্ত নিষ্ঠার সাথে কাজ করতে গিয়ে তিনি সকলের কাছে ‘মামুন ভাই’ হিসেবে পরিচিতি লাভ করেন। আস্থাভাজন মামুন ভাইয়ের সাথে সকল স্তরের কর্মীদের যোগাযোগ নিবিড় থেকে নিবিড়তর হতে থাকে। কর্মীদের সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে তিনি আস্থার প্রতীক হয়ে ওঠেন। পর্যায়ক্রমে তিনি বাংলাদেশের মেহনতী মানুষের অধিকার আদায়ের হাতিয়ার ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলনের সাথে নিজেকে সম্পৃক্ত করেন এবং মৃত্যুর আগ মুহূর্ত পর্যন্ত বাংলাদেশের শ্রমিক আন্দোলনের একজন সক্রিয় নেতা হিসেবে নিয়োজিত থাকেন।
জাতীয় ও আন্তর্জাতিক অঙ্গণে মামুনুর রশিদ চৌধুরী: BFIDC পরিসর থেকে তার সংগঠনকে দেশব্যাপী ছড়িয়ে দিতে জনাব মামুনুর রশিদ চৌধুরী বিশেষ ভূমিকা রাখেন। ১৯৭২ সালে শেখ ফজলুল হক মনির অনুপ্রেরণায় তিনি ‘জাতীয় শ্রমিক লীগ’-এর শিক্ষা সম্পাদকের দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে নিজেকে জাতীয় আন্দোলনের সাথে সম্পৃক্ত করেন। পরবর্তীতে দল নিরপেক্ষ শ্রমিক আন্দোলনে অবদান রাখার লক্ষ্যে তিনি ১৯৮৮ সালে ‘বাংলাদেশে ফ্রি ট্রেড ইউনিয়ন কংগ্রেস’ (বিএফটিইউসি)-এ যোগদান করেন এবং আমৃত্যু বিএফটিইউসির সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। বিএফটিইউসি এর মাধ্যমে তিনি আন্তর্জাতিক বৃহত্তম শ্রমিক সংগঠন ICFTU (বর্তমানে ITUC)’র পক্ষে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়নে সক্রিয় অবদান রাখেন।
দেশের নির্মাণ ও কাঠ শিল্পের শ্রমিকদের সংগঠিত করে শ্রম অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে ১৯৮১ সালে প্রতিষ্ঠা করেন বাংলাদেশ বিল্ডিং অ্যান্ড উড ওয়ার্কার্স ফেডারেশন (বিবিডব্লিউডব্লিউএফ)। তিনি এই সংগঠনের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন।
গার্মেন্টস শিল্পের শ্রমিকদের সংগঠিত করে তাদের অধিকার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে তিনি ১৯৮৫ সালে প্রতিষ্ঠা করেন ‘ফেডারেশন অব গার্মেন্টস ওয়াকার্স’ (এফজিডব্লিউ)। তিনি এই সংগঠনের সভাপতি হিসেবে এর কাজ আরও বেগবান করেন।
শ্রমিকদের বৃহত্তর স্বার্থ বিবেচনা করে ঐক্যবদ্ধ ট্রেড ইউনিয়ন আন্দোলন কার্যক্রম পরিচালনার জন্য জাতীয় শ্রমিক সংগঠনগুলোর সমন্বয়ে গঠিত ‘শ্রমিক কর্মচারি ঐক্য পরিষদ’ (SKOP)-এর বিভিন্ন কার্যক্রম ও আন্দোলন-সংগ্রামেঅগ্রণী ভূমিকা পালন করেন ।
১৯৯৫ সালে দেশের ১৩টি বৃহৎ জাতীয় ট্রেড ইউনিয়ন-এর দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে শ্রম সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসেবে প্রতিষ্ঠিত বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব লেবার স্টাডিজ (বিলস) এর প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে তিনি এর উপদেষ্টা পরিষদের সম্মানিত সদস্য ছিলেন।
কর্মক্ষেত্রে শ্রমিকদের অধিকার আদায় বিশেষ করে পেশাগত স্বাস্থ্য ও নিরাপত্তার অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে শ্রম সহায়ক প্রতিষ্ঠান হিসাবে ২০০৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হয় বাংলাদেশ অক্যুপেশনাল সেইফ্টি, হেলথ্ অ্যান্ড এনভায়রনমেন্ট ফাউন্ডেশন (ওশি)। জনাব মামুনুর রশিদ চৌধুরী ওশি’র প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে আমৃত্যু উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য ছিলেন।
বৈশ্বিক শ্রমিক আন্দোলনে সর্ববৃহৎ সংগঠন ITUC’র অন্তর্ভুক্ত ৫টি জাতীয় শ্রমিক সংগঠনকে একত্রিত করে ঐক্যবদ্ধ শ্রমিক আন্দোলন গড়ে তোলার লক্ষ্যে গঠিত ‘বাংলাদেশ কনফেডারেশন অব ট্রেড ইউনিয়ন্স’ (বিসিটিইউ) এর গঠনে ভূমিকা রাখেন। তিনি ‘বিসিটিইউ’ এর প্রথম নির্বাচিত মহাসচিব ছিলেন।
এছাড়াও তিনি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিভিন্ন সংস্থা ও সংগঠনে গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করেন। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে:
১. শ্রমিক কর্মচারি ঐক্য পরিষদ (SKOP) এর অন্যতম সদস্য।
২. TCC এর সদস্য।
৩. বাংলাদেশ শ্রমিককল্যাণ ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাকালীন বোর্ড সদস্য।
৪. জাতীয় শিল্প স্বাস্থ্য নিরাপত্তা কাউন্সিলের সদস্য।
৫. ৩য় শ্রম আদালতের সদস্য (১৯৯৫-২০০৯)
৬. ITUC নির্বাহী পরিষদের Titular সদস্য।
৭. BWI নির্বাহী পরিষদের Titular সদস্য।
আর্ন্তজাতিক বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থার আমন্ত্রণে তিনি পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ ভ্রমণ করেন। এসময় বাংলাদেশের শ্রম অধিকার পরিস্থিতি বিশ্বের সামনে তুলে ধরেন এবং শ্রমমান উন্নয়নে গুরুত্বপূর্ণ সুপারিশ প্রদান করেন। তিনি যে সব দেশে সফর করেছেন তার মধ্যে ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলংকা, নেপাল, জাপান, সিঙ্গাপুর, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, ফিলিপাইন, ইতালি, ইংল্যান্ড, তুরস্ক, বেলজিয়াম,ফ্রান্স, দক্ষিণ আফ্রিকা, কানাডা ও আমেরিকা উল্লেখযোগ্য।
মৃত্যু: জন্ম যার আছে, মৃত্যু তার অনিবার্য। মৃত্যুর এই সমীকরণ মেনে নিয়ে দীর্ঘদিন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করেন জনাব মামুনুর রশিদ চৌধুরী। ৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৩, বেলা ১১ টা ৫৮ মিনিটে জাতীয় বক্ষব্যাধী হাসাপাতালে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন (ইন্না নিল্লাহে ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন) এই গুণী ব্যক্তি। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৮ বছর। তিনি স্ত্রী, ১ ছেলে,৩ মেয়ে এবং অসংখ্য শুভাকাক্সক্ষী রেখে যান।